১৯শে এপ্রিল, ২০২৪ খ্রিস্টাব্দ | ৬ই বৈশাখ, ১৪৩১ বঙ্গাব্দ

EN

ঢাকা-সিলেট মহাসড়কে সরাইল শাহবাজপুর ব্রিজ ঝুঁকিপূর্ণ, বড় ধরণের দুর্ঘটনার আশংকা

বার্তা সম্পাদক

প্রকাশিত: ২:০৮ পূর্বাহ্ণ , ১১ সেপ্টেম্বর ২০১৭, সোমবার , পোষ্ট করা হয়েছে 7 years আগে

এম এ করিম সরাইল নিউজ টোয়েন্টিফোর ডটকম ডেস্ক:

ঢাকা-সিলেট মহাসড়কে ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলার সরাইল শাহবাজপুর ব্রিজটি দীর্ঘদিন ধরে চরম ঝুঁকির মধ্যে রয়েছে। প্রতিদিন স্কুল-কলেজের ছাত্র-ছাত্রীসহ হাজার হাজার মানুষ জীবনের ঝুঁকি নিয়ে ব্রিজটির মধ্য দিয়ে যাতায়াত করছে। শত শত যানবাহন ঝুঁকি নিয়েই ব্রিজটির উপর দিয়ে প্রতিনিয়ত চলাচল করছে। যেকোনো সময় বড় ধরনের দুর্ঘটনার আশংকা করছেন এলাকাবাসী। জীবন- জীবিকার টানে জীবনের ঝুঁকি নিয়েই পূর্বাঞ্চলের হাজার হাজার মানুষ রাজধানী ঢাকাসহ দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে যানবাহনে করে যাথায়াত করছেন। সরজমিন দেখা যায় ব্রিজের উপর যেকোনো যানবাহন চলাচলের সময় ব্রিজটি কাপঁতে থাকে। এসময় প্রাণভয়ে যাত্রীরা চরম আতংকিত হয়ে পড়েন। ব্রিজটির সামনে টানানো রয়েছে সতর্ক নোটিশ। “ঝুঁকিপূর্ণ সেতু, ২০টনের বেশী মালামাল পরিবহনকারী যানবাহন চলাচল নিষেধ। কিন্তু কে শোনে কার কথা। দিব্যি ২০টনের বেশী মালামাল নিয়ে চরম ঝঁকি নিয়েই চলাচল করছে দূরপাল্লার ভারী যানবাহন। জানা যায়, ২০৩ মিটার দীর্ঘ এ ব্রিজটি নির্মিত হয় ১৯৬৬ সালে। গত ৫-৬ বছর ধরেই ব্রিজটি নড়বড়ে। সওজ সূত্রে জানা যায়, শাহবাজপুরের তিতাস নদীর ওপর নতুন একটি ব্রিজ নির্মাণ ও পুরনো ব্রিজটি সংস্কারের জন্য ৬৭ কোটি ৯০ লাখ টাকা ব্যয়ের একটি প্রকল্প প্রস্তাব একনেকে অনুমোদিত হওয়ার পর টেন্ডার প্রক্রিয়া সম্পন্ন হয়েছে। প্রস্তাবিত সেতুর মোট দৈর্ঘ্য ২১৯ দশমিক ৪৫৬ মিটার ও প্রস্থ ১৪ মিটার। সেতুটি মোট ৬টি স্প্যান, ৫টি পিলার এবং ৮০টি পাইলের ওপর নির্মিত হবে। নতুন সেতুটিতে হালকা যান চলাচলের জন্য আলাদা লেনের ব্যবস্থা থাকবে। কাজটি পেয়েছে মেসার্স জামিল ইকবাল নামের সিলেটের একটি কন্সট্রাকশন ফার্ম। গত ২০শে জুলাই মহাসড়কের ৯৩তম এ ব্রিজের কাজের আনুষ্ঠানিক উদ্বোধন করেছেন সড়ক পরিবহন ও সেতুমন্ত্রী মো. ওবায়দুল কাদের এমপি। কার্যাদেশ অনুযায়ী ১০ই আগস্ট থেকে কাজটি শুরু করার নির্দেশ থাকলেও এখনো স্থবির কাজের গতি।  বহুমুখী উচ্চ বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক মোহাম্মদ আলী বলেন, ব্রিজের পূর্ব পাশের কয়েকটি গ্রাম থেকে শতাধিক শিক্ষার্থী প্রতিদিন ঝুঁকি নিয়েই বিদ্যালয়ে আসছে। এ ছাড়া ইসলামপুর কলেজেও এই এলাকার শত শত শিক্ষার্থী ভীতি নিয়েই নিয়মিত যাচ্ছে-আসছে। পাঠদান শেষ করে বাড়ি ফেরার আগ পর্যন্ত অভিভাবক ও শিক্ষকরা খুবই টেনশনে থাকেন। এ ভোগান্তি কবে শেষ হবে খোদাই জানেন। ব্রাহ্মণবাড়িয়া জেলা সড়ক ও জনপথ বিভাগের উপ-বিভাগীয় প্রকৌশলী মো. আমির হোসেন টেন্ডার প্রক্রিয়া সম্পন্ন হওয়ার কথা নিশ্চিত করে বলেন, লোডিং ক্ষমতা পরীক্ষা নিরীক্ষার  জন্য প্রেরণ করা হয়েছে। কমপক্ষে ২৮ দিন সময় লাগবে। আগামী ২ বছরের মধ্যে ব্রিজের কাজটি সম্পন্ন হবে।

 

0

পাঠকের মতামত

**মন্তব্য সমূহ পাঠকের একান্ত ব্যক্তিগত। এর জন্য সম্পাদক দায়ী নন।


আপনার মন্তব্য লিখুন

আর্কাইভ

April 2024
M T W T F S S
1234567
891011121314
15161718192021
22232425262728
2930  
আরও পড়ুন